শিউলী ইসলাম’এর ব্লগ

জীবন মানেই গল্প কবিতা ছন্দের আলোকিত শক্তি

এই মোর বাণী…

নিজেকে জানি
যা  কিছু ভাল মানি
মুছে যাক অকল্যাণের গ্লানি
প্রাণেতে বাজে শুদ্ধতার ধ্বনি
এই হোক মোর বাণী।।

শুভজন্মদিনে শুভেচ্ছা

শুভজন্মদিনের মত ভরে উঠুক
 তোমাদের জীবন সদানন্দ
  
 যাক ধুয়ে ঘৃণা ক্ষোভ মন্দ

প্রানেতে ভরে যাক গান

হৃদয়ে আসুক প্রানবন্ত ছন্দ

সবারে ভালবাস কর আনন্দ।। আম্মু

 

বকুলতলা

টিনে শনে কত বাড়ি

বাঁশ বাগানের সারি সারি

পিছন পাড়ে পুকুর ঘেরা

আম কাঁঠল আর লিচুতে সেরা

শাপলা শালুক বিলের ধারে

বক পাখিরা মাছ ধরে,

বকুলতলায় ঝরতো বকুল

গোলাপ বেলী ফুটতো যে ফুল

মাচায় মাচায় কুমড়ো ঝোলে

কচি পটল শোলার

বেড়ায় বাতাসে দোলে

ফাগুন মাসে মৌ মাছিরা

বসে আমের বোলে

মৌ পিয়ে সেই সুবাসে

নাচে তালে তালে

ধানের শিষে মিষ্টি বাতাস

দোলে নাচন তোলে

সেই খুশীতে হৃদয়

তখন আনন্দেতে ভোলে

মাঠে মাঠে বেড়ায় রাখাল

বাজায় বাঁশী সকাল বিকাল

পুকুরে মাছ করে খেলা

ভেসে বেড়ায় কলার ভেলা

সেই সে দিনের

মধুর মধুর ছবি

ভাবি বসে লিখে দিতেম

যদি হতেম কবি।।

 

হীরের কণা

  

অঙ্গার নিজে পুড়ে

হয়েছে আঁধারে কালো

লুকিয়ে রেখেছে তার  

মনেতে অসীম আলো  

কালো অপবাদে পরেছে  

হীরে ঝলমলে মল  

নীরবে নিভৃতে ফেলে  

নয়নের যতো জল  

প্রাসাদে ঘরে তার  

খনির হীরের কণা  

কালো ভেবে ছুড়ে  

ফেলে দেয় অঙ্গারখানা  

বেদনার জালে বোনা

ছড়িয়ে দেয় প্রীতিকণা 

আত্মাহুতি দিয়ে উৎসর্গ  

করেছে অন্তরের মালাখানা  

মরুময় করেছে অঙ্গার  

তনু হিয়া পুড়ে পুড়ে  

আর্তনাদ উল্লাস ভেবে  

কখনও সে ভুল করে  

দোলে যায় পদাঘাতে  

তারে করে পদদলিত  

নিজে পুড়ে রক্তিম  

অগ্নিশিখা হয় জ্বলন্ত  

ছড়িয়ে দেয় শিখার  

আলো দিক দিগন্ত  

নেভে আর জ্বলে  

বারবার যেন নিবন্ত  

প্রতিটি ক্ষনে নিজের  

কাছে যেন সে জীবন্ত  

আকাশে পাতালে  

মৃত্তিকাতে জ্বলে নিত্য  

অমূল্যরতন বিলিয়ে দিয়ে  

নিজেকে করে রিক্ত  

হৃদয়ের ভালবাসা দিয়ে  

পৃথিবীকে করে দীপ্ত  

কালো অপবাদ থেকে  

হয়না কখনও মুক্ত।।  

২৫শে বৈশাখ

 রবির আলোয় উদ্ভাসিত

পাতায় পাতায় পল্লবিত

 ২৫শে বৈশাখ,

তোমারি গানে গানে তব ভরে থাক

 প্রকৃতিতে সুরে সুরে

মিশে আছো অন্তরে অন্তরে

আকাশে বাতাসে সবখানে

ভরিয়ে দিয়েছো থরে থরে

 যা ছিল দিয়েছো সবকিছু দেবার

 উন্নত শিরে মনে আছো সবার

 তব গানে গানে আছো মনে মনে

হিয়ার মাঝে রয়েছো ধ্যানে জ্ঞানে

তরনী তটিনীর তীরে

আকাশের তারার ভীড়ে

আছো সবখানে

তবু খুঁজি তোমায় আমি শূন্য নয়নে

কখনও আবার বনে বনে

হৃদয়ে খুঁজি দুবাহু বাড়িয়ে

 সবকিছুকে ছাড়িয়ে

আছো তুমি সর্বএ ছড়িয়ে

আছো নক্ষএ হয়ে তিমিরে

যুগ যুগ ধরে রবে তুমি হৃদয়ের ।।

 

কর ভক্তি

কটু কথা ধরো না
সন্দেহেতে থেকো না
কলুষিত মন ভবঘুরে
নিয়ে যাবে আস্তাকুঁড়ে
বলবে তখন ভাবিস রে?
স্বপ্নঘোরে রাজাধিরাজ করে
কাজকে দেবে দূরে ঠেলে
যায় জীবন হেসে খেলে
চিন্তাহীন ভাবনাহীন দিন
জীবনের আনন্দ ক্ষীণ
অলসে বাজায় বীণ।
যায় না তবু প্রহর দিন
আত্মগ্লনিতে নুইয়ে পড়ে
মনেতে তখন ঘুনে ধরে
 আত্মগৌরবে খুশি ঝরে
মনের দুঃখ মনের ঘরে
থাকে সে সঙ্গী করে
 যায় যে সবাই  দূরে সরে।
কর সুকাজ আনে শক্তি
নিজেকে কর ভক্তি
পাবে তবে মুক্তি।।

বৈশাখে

বৈশাখে দুরন্ত বাতাসে-

টুপটাপ আম পড়ে মিষ্টি সুবাসে

পাতাগুলো যেন ডাকে মৃদু বাতাসে

 ছেলেমেয়ে আমগুলো নিয়ে যা এসে-

কচি আম গুটি গুটি পায়ে

চুপি চুপি যায় তুলে নিয়ে 

  পথে যেতে কখন হোঁচট খেয়ে

 দূরে চলে যায় দৌড়ে পালিয়ে   

 পেয়েছে যেন অজেয় কিছু

আনন্দে আত্মহারা দেখেনা পিছু

টক ঝাল মেখে মিষ্টি মুখে

খায় তারা বসে আনন্দে সুখে

কষে রাঙিয়ে আহ্লাদে  তারা

খুশির জোয়ারে মন যে হারা।।

 

Word count: 65 Draft Saved at 9:45:08 pm. Last edited by শিউলি ইসলাম on এপ্রিল 14, 2010 at 6:51 AM

Follow

Get every new post delivered to your Inbox.